শিরোনাম

14 May 2021 - 11:43:54 pm। লগিন

Default Ad Banner

“শিশুদের মধ্যে অসুস্থ প্রতিযোগিতার জন্য অভিভাবক দায়ী”

Published on Wednesday, March 13, 2019 at 8:50 am 280 Views

এমসি ডেস্ক: শিশুদের পড়ালেখার জন্য কোনো ধরনের চাপ না দিয়ে তাদের খেলাধুলার মধ্য দিয়ে শিক্ষাদানের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর শিক্ষার জন্য শিশুদের মধ্যে কোন প্রতিযোগিতা না থাকলেও অভিভাবকদের মধ্যে এই প্রতিযোগিতা রয়েছে বলে মনে করে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, শিশুরা হাসি-খেলার মধ্য দিয়ে শিখবে। তাদের ওপর কোনো চাপ দেওয়া যাবে না। কিন্তু শিশুদের মধ্যে প্রতিযোগিতা না থাকলেও অনেক মায়েদের ও বাবাদের প্রতিযোগিতায় লিপ্ত থাকতে দেখা যায়। এটা অসুস্থ প্রতিযোগিতা।

বুধবার (১৩ মার্চ) সকালে রাজধানীর
বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা
সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সব শিক্ষার্থীর মেধা
সমান থাকবে না, সবাই সমানভাবে শিখতে পারবে না। স্বাভাবিকভাবে যে যতটুকু
শিখতে পারবে, ততটুকুর জন্যই তাকে সহযোগিতা করতে হবে যেন শিক্ষাকে আপন করে
নিয়ে শিখতে পারে।

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা প্রাথমিক শিক্ষায়
বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছি। এরই মধ্যে প্রাক-প্রাথমিকও চালু করেছি কিন্তু
শিশুদের শিক্ষার জন্য অতিরিক্ত চাপ দেওয়া উচিত নয়। কিন্তু অনেক দেশ আছে,
যেখানে ৭ বছর বয়স থেকে বাচ্চাদের স্কুলে পাঠানো হয়, তার আগে নয়। আসলে
শিশুদের জন্য এমনভাবে পড়ালেখার ব্যবস্থা তৈরি করতে হবে, যেন তারা খেলতে
খেলতে, হাসতে হাসতে নিজের মতো করে শিখতে পারে। চাপ দিলে শিক্ষার প্রতি
তাদের আগ্রহ কমে যাবে, ভীতি তৈরি হবে। সেই ভীতি যেন শিশুদের মধ্যে তৈরি না
হয়, সেদিকে দৃষ্টি দেওয়ার জন্য শিক্ষক ও অভিভাবকদের অনুরোধ করব।

শিশুদের স্কুলে ভর্তিতে ভর্তি পরীক্ষার
তীব্র বিরোধিতা করে শেখ হাসিনা বলেন, অনেক জায়গায় দেখি ক্লাস ওয়ানে ভর্তির
জন্য ছাপানো প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা নেওয়া হয়। আমার প্রশ্ন, তারা সবকিছু শিখেই
যদি স্কুলে যাবে, তাহলে স্কুলে গিয়ে কী শিখবে? এই প্রক্রিয়া বাতিল করতে
হবে। কেননা এটা এক ধরনের মানসিক অত্যাচার করা যাবে না। এটার দরকার নাই।
হাসি-খেলার মধ্য দিয়ে তারা পড়বে। পড়ালেখাকে আকর্ষণীয় করে তুলতে হবে।

তিনি বলেন, আমি বলেছি, ঢাকা হোক বা দেশের
বাইরে যেকোনো জায়গায় হোক, সব জায়গাতে এলাকাভিত্তিক স্কুলে শিক্ষার্থীদের
ভর্তি করতে হবে। এরই মধ্যে কিছু ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আরও ভালোভাবে
ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এই ব্যবস্থায় শিশুর বয়স ৪-৫ বছর হয়ে গেলেই তাকে স্কুলে
ভর্তি করে নিতে হবে। এই শিক্ষা তো তার অধিকার। অনেক উচ্চবিত্ত, বিত্তশালী
আছে যারা সন্তানদের বিশেষ বিশেষ স্কুলে পড়াতে চান। তাদের কথা আলাদা। কিন্তু
প্রতিটি শিশু যেন নিজ নিজ এলাকার স্কুলে সহজে যেতে পারে, সেই ব্যবস্থা
নিতে হবে।

শিক্ষাকে শিশুদের কাছে আকর্ষণীয় করতেই
ডিজিটাল পদ্ধতি, মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুমের ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানান
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, শিশুদের যেন কেবল বই পড়েই শিখতে না
হয়, তারা দেখেও শিখবে।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন প্রাথমিক ও
গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মোস্তাফিজুর
রহমান ফিজার, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মো. জাকির হোসেন প্রমুখ।

Default Ad Banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *