শিরোনাম

13 Apr 2021 - 04:37:27 pm। লগিন

Default Ad Banner

ভূয়া ওয়ারেন্ট তৈরীর অভিযোগে বীরগঞ্জে আদালতের সীল-স্বাক্ষর জ্বাল করে গ্রেফতার ও হয়রানী করায় সাবেক ওসি সাকিলা পারভিনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের

Published on Friday, August 14, 2020 at 10:34 pm 84 Views

মোঃ আবেদ আলী: ঢাকা অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ-৪ এবং স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল-৫ নামীয় আদালতের ভূয়া মামলার ওয়ারেন্ট তৈরীর অভিযোগ আদালতের সীল-স্বাক্ষর জাল করে গ্রেফতার ও হয়রানী করায় বীরগঞ্জ থানার সাবেক ওসি সাকিলা পারভীন (বর্তমানে গাইবান্ধা)’র বিরুদ্ধে দিনাজপুরের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বীরগঞ্জ পৌরসভার সুজালপুর (হাটখোলা) এলাকার মোঃ সাইফুল আলমের স্ত্রী মোছাঃ শাহানাজ পারভীন (৪৪) মোবা-০১৭৩৭৫৩৭৩০২ বাদী হয়ে দন্ডবিধি আইনের ১৬৭৮, ৪৬৫, ৪৬৮,৪৭১, ৪৬৯, ৪৭৩, ৫০০, ৫০১ ও ৫০৬ ধারায় জেলা দিনাজপুরের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে এই মামলা দায়ের করেন যাহার নং-৩৬ তারিখ-২৮/০২/২০২০ইং।

Loading
তিনি ১৪ আগষ্ট সন্ধ্যায় জানান,বীরগঞ্জ থানার সাবেক ওসি সাকিলা পারভীন (বর্তমানে গাইবান্ধা)’র বিরুদ্ধে অভিযোগে মামলার বাদী উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান (সাবেক), সমাজ সেবিকা মোছাঃ শাহানাজ পারভীন অভিযোগ কওে জানান, অভিযুক্ত ওসি সাকিলা পারভিন এ থানায় যোগদানের পর বিভিন্ন ব্যাপক অনিয়ম-সেচ্ছাচরিতা ও দুর্নীতির জরালো প্রতিবাদ করেন। এই কারনে ক্ষিপ্ত হয়ে ওসি সাকিলা পারভীন তাকে সমাজের চোখে হেয়পতিপন্ন এবং আর্থিক ভাব্ েক্ষতিগ্রস্থ করার জন্য তার বড়ভাই মামলার ২নং-সাক্ষী মাহাবুব হোসেন বাবু’র নামে ঢাকা নারী ও শিশু  নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৫ নামীয় আদালতের সীল-স্বাক্ষর জাল করে ভূয়া মামলা নং-১০৮/২০১৬ ধারা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন  আইন ২০০০ (সংশোধিত/২০০৩) এর ৯(২)/৩০।

চাচাতো ভাই ৩নং-সাক্ষী সাদ্দাম হোসেনের নামীয় ঢাকা অতিরিক্ত দায়রা জজ-৪ এবং স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল-৫ একই কায়দায় আদালতের সীল-স্বাক্ষর জাল করে ভূয়া মামলা নং-৭৮০/২০১৬ দায়রা জজ ভূয়া ওয়ারেন্টে গ্রেফতার অভিযান চালায়। ওয়ারেন্টের ফটোকপি নিয়ে ঢাকা অতিরিক্ত দায়রা জজ-৪ এবং স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল-৫ গত ২৭/০৩/২০১৮ইং আইনজীবির মাধ্যমে আদলতে হাজির হলে বিজ্ঞবিচারক আদেশ দেন এই আদালতে ৭৮০/২০১৬ইং নং- মামলা নাই এবং ওয়ারেন্ট ইসু করা হয়নি যাহা মিথ্যা বনোয়াট ও জাল।

অতঃপর সাবেক ওসি সাকিলা পারভীন বাদীর আর এক বড়ভাই বর্তমানে মরিচা ইউপি সদস্য ১নং-সাক্ষী লিটন ওরফে বুলবুল আহম্মেদে নামে ঢাকা অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালত-৪ এবং স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল-৫ একই কায়দায় আদালতের সীল-স্বাক্ষর জাল করে ভূয়া মামলা নং-৫৭৪/২০১৯ইং ও ধারা ৩০২/৩৪ দন্ডবিধি ধারা বসিয়ে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরন করে। আবার ওয়ারেন্টের ফটোকপি নিয়ে ঢাকা অতিরিক্ত দায়রা জজ-৪ এবং স্পেশাল ট্রাইব্যুনাল-৫ আইনজীবির মাধ্যমে আদলতে হাজির হলে বিজ্ঞবিচারক আদেশ দেন এই আদালতে ৫৭৪/২০১৯ইং নং-মামলা নাই এবং ওয়ারেন্ট ইসু করা হয়নি যাহা মিথ্যা বনোয়াট ও জাল।

বিজ্ঞবিচারক ন্যায় বিচারের প্রতিষ্ঠার স্বার্থে আসামীর প্রতি রিলিজ আদেশ দেন। বাদী মনে করেন ওসি সাকিলা পারভিনের দুর্নীতির প্রতিবাদ করার কারনে ক্ষিপ্ত হয়ে বার বার ভূয়া ওয়ারেন্ট তৈরী করে তার পরিবারের প্রতি অত্যাচার, জুলুম ও নির্যাতন চালিয়ে বাদী ও সাক্ষীগনের সামাজিক ভাবে হয়েপতিপন্ন সহ চার কোটি টাকার ক্ষতিসাধন করেছে। বাদী উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান (সাবেক), সমাজ সেবিকা ও মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী মোছাঃ শাহানাজ পারভীন এ ধরনের ঘৃন্য দুর্নীতিবাজ, ঘুষখোর, সম্মানহানী ও ইজ্জতহানী অসাধু পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির জোর দাবিতে জেলা দিনাজপুরের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে এই মামলা দায়ের করেন যাহার নং-৩৬ তারিখ-২৮/০২/২০২০ইং।

বিজ্ঞ বিচারক মামলা তদন্ত ও চুড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য সিআইডিকে নিদের্শ দিয়েছেন। সিআইডি তৎকালিন ওসি সাকিলা পারভীনে’র বিরুদ্ধে আনিত মামলার তদন্তে মাঠে নেমেছেন।

Default Ad Banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *