শিরোনাম

05 Aug 2021 - 01:07:03 am। লগিন

Default Ad Banner

ভাড়া আদায় বিআরটি-এর চার্ট অনুসারেই, চলবে সিটিং সার্ভিস

Published on Thursday, April 20, 2017 at 4:45 pm 527 Views

বাসস -বাস মালিকদের সাথে আলোচনার পর সিটিং সার্ভিসের বিরুদ্ধে অভিযান ১৫ দিনের জন্য স্থগিতের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ- বিআরটিএ। এরপর সংশ্লিষ্ট সবার সাথে আলোচনা করে ওই সার্ভিসের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন বিআরটিএ চেয়ারম্যান মো. মশিয়ার রহমান। তবে এসব বাসে সরকার নির্ধারিত হারের অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা যাবে না বলে জানিয়েছেন তিনি।

বুধবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) চেয়ারম্যান মশিয়ার রহমান এলেনবাড়িতে সংস্থার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান। এর আগে পরিবহন মালিক, পরিবহন বিশেষজ্ঞ, যাত্রী ও নাগরিক প্রতিনিধি এবং বিআরটিএ চেয়ারম্যান-সচিবসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা একটি বৈঠক করেন। এতে অন্যান্যের মধ্যে ঢাকা সড়ক পরিবহন সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েত উল্যাহ, চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন, সাংবাদিক নাঈমুল ইসলাম খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

গত রোববার সিটিং সার্ভিস বাস চালানো বন্ধের ঘোষণা দেওয়ার পর বিআরটিএর ভ্রাম্যমাণ আদালত এর বিরুদ্ধে অভিযানে নামে। এতে অনেক বাস মালিক সড়কে গাড়ি না নামালে পরিবহন সঙ্কট দেখা দেয়। ভাড়া নিয়ে যাত্রী ও পরিবহন শ্রমিকদের তর্ক-বিতর্ক ও হাতাহাতির ঘটনাও ঘটছে গত তিন দিন ধরে। এ অবস্থায় বুধবার বিকেলে রাজধানীর পরিবহন মালিকদের নিয়ে বৈঠক করে বিআরটিএ।

বৈঠক শেষে বিআরটিএ চেয়ারম্যান মশিয়ার রহমান সাংবাদিকদের বলেন, জনদুর্ভোগ কমাতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ১৫ দিন সিটিং সার্ভিসের বিরুদ্ধে কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা না নেওয়া হলেও; অন্য বাসগুলোর বিরুদ্ধে যে অভিযান চলছে তা অব্যাহত থাকবে। তারপর সংশ্লিষ্ট সবাইকে নিয়ে বসে এই বিষয়ে একটি সিদ্ধান্ত নিতে হবে। এই সময়ের মধ্যে বিআরটিএ নির্ধারিত চার্ট অনুযায়ী সব বাসের ভাড়া নিতে হবে বলে জানান তিনি। তা না করলে সড়কে কার্যরত ভ্রাম্যমাণ আদালত ব্যবস্থা নেবে।

বিআরটিএ চেয়ারম্যান বলেন- কোনো অবস্থাতেই ভাড়ার ব্যাপারে আপস করবো না। সরকারি হিসাবে কিলোমিটার প্রতি যা ভাড়া আছে, তা নিতে হবে।

যাত্রীরা যদি চায়, তাহলে সিটিং সার্ভিসকে একটি আইনি কাঠামোয় আনার পরিকল্পনা নেওয়া হবে বলে জানান বিআরটিএ চেয়ারম্যান।

তিনি বলেন- একটা উদ্দেশ্য নিয়েই মালিকরা সিটিং সার্ভিস বন্ধ করেছিলেন। তাদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আমরা তাদের সে উদ্যোগে সহায়তা করেছি। তবে সিটিং সার্ভিস বন্ধ হওয়ার পর নারী, শিশু, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী যাত্রীদের অসুবিধার কথা বিভিন্ন গণমাধ্যমে উঠে এসেছে। তাদের গাড়িতে উঠতে সমস্যা হচ্ছে।

 

Default Ad Banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *