শিরোনাম

12 Apr 2021 - 09:45:46 am। লগিন

Default Ad Banner

বিরামপুরে হাড়কাঁপানো শীত ও ঘন কুয়াশায় জনজীবন বিপর্যস্ত

Published on Sunday, December 22, 2019 at 5:33 pm 93 Views
জালাল উদ্দীন রুমীঃ দিনাজপুর জেলার বিরামপুর উপজেলায় হাড়কাঁপানো শীত ও ঘন কুয়াশায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে ছিন্নমুল খেটেখাওয়া শ্রমজীবি মানুষরা। কুয়াশার কারণে দিনের বেলায় হেডলাইট জ্বালিয়ে ছোট বড় সব ধরনের যানবাহনকে সড়ক পথে চলাচল করতে হচ্ছে। শীতের সাথে কনকনে বাতাসের কারণে কাহিল হয়ে পড়েছে জনজীবন। তাই কনকনে শীতের কবল থেকে রেহায় পায়নি শিশু,বৃদ্ধসহ স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরাও ।
উপজেলা শহরের রাস্তার পার্শ্বের পুরাতুন গরম কাপড়ের দোকানগুলোতে শৈত প্রবাহের আগে  গরম কাপড়ের দাম তেমন না থাকলেও গত কয়েকদিন থেকে পুরাতুন গরম কাপড়ের মুল্য অনেক গুণ বেড়েছে। পুরাতন গরম কাপড় কিনতে গিয়েও হিমশিম খাচ্ছেন অনেকেই।
দিন দিন তীব্র শীত, ঘন কুয়াশা আর কনকনে বাতাসের কারণে দিনমজুর ও ক্ষেতমজুর পরিবারগুলো কাজ করতে না পারায় পরিবার পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। গরম কাপড়ের অভাবে খড়কুটা জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছেন অনেকেই।
শীতের সাথে কনকনে হিমেল হাওয়া প্রবাহিত হওয়ায় প্রয়োজন ছাড়া কেউ  বাড়ির বাইরে বের হচ্ছেন না। স্কুল-কলেজ, মাদ্রাসাসহ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোতে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি একেবারেই কমে গেছে। একই ভাবে শীতের কারণে হোটেল ও বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো ও ক্রেতা শূন্য হয়ে পড়েছে।
মাইক্রোবাস চালক মহবতুল্যার ছেলে মোজাফফর রহমান জানান, ঘন কুয়াশার কারণে গাড়ি নিয়ে রাস্তায় নামলেই আতঙ্কের মধ্যে পথ চলতে হচ্ছে। দিরা রাত্রীতে গাড়ির হেডলাইট জ্বালিয়ে পথ চলছেন বলে তিনি জানিয়েছেন।
বিরামপুর উপজেলার রিকশা চালক মোশারফ হোসেন বলেন, তীব্র শীত আর ঘন কুয়াশার জন্য গত কয়েক দিন ধরে তেমন আয় রোজগার করতে না পারায়, সংসার চালাতে খুবই কষ্ট হচ্ছে।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. শাহারিয়ার ফেরদৌস হিমেল জানান, শীতজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে যেসব শিশু ও বৃদ্ধ-বৃদ্ধা চিকিৎসা নিতে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসছে তাদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে। তবে খুব বেশী অসুস্থ্ রোগীদের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে চিকিৎসাসেবা দেওয়া হচ্ছে।
Default Ad Banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *