17 Jan 2021 - 12:25:35 pm। লগিন

Default Ad Banner

বিরলে অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত শিশুর জীবনাবসান

Published on Sunday, March 10, 2019 at 8:02 am 150 Views

এমসি ডেস্ক: বিরলে অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত শিশু মাহমুদা’র জীবনাবসান হয়েছে। শনিবার বিকেলে সে নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করে এবং সন্ধ্যায় জানাযা শেষে তাঁকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। এর আগে ১ আগস্ট ২০১৭ খ্রিস্টাব্দে বিরল উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ,বি,এম, রওশন কবীর অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত শিশু মাহমুদা’র পিতা আব্দুর রহিমের হাতে চিকিৎসার জন্য উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে আর্থিক সহায়তা তুলে দিয়ে ঢাকা’র পিজি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তির দিকনির্দেশনা প্রদান করেন।

উল্লেখ্য, বিরল উপজেলার কামদেবপুর গ্রামের দিনমজুর আব্দুর রহিম এর কন্যা
মাহমুদা’র হাত-পা সহ শরীরে আগুনের স্যাঁকা (আঁচ) লাগলে যেমন ফোঁসা পড়ে,
তেমনি ফোঁসা উঠে ফেটে গিয়ে আঠালো রস বের হতে শুরু করে। আস্তে আস্তে
ফোঁসার আঠালো রস দিয়ে হাত-পায়ের আঙ্গুলগুলো জোড়া লেগে যেতে শুরু করে।

যতই দিন যাচ্ছিল, ততই গোটা শরীরে ফোঁসা উঠছিল। ফোঁসার যন্ত্রানায় ছট ফট করতে থাকে সারাক্ষণ শিশুটি। তখন খুবই কষ্ট লাগে পরিবারের লোকজনসহ সকলের। কিন্তু অর্থের অভাবে উন্নত চিকিৎসা করার সাধ্য তাঁর পরিবারের আর ছিল না। চোখের সামনে অবুঝ শিশুটি ধুঁকে ধুঁকে মৃত্যুর দিকে ধাবিত হচ্ছিল। পরিবারের সদস্যদের মাথা গুজার নিজস্ব ঠাঁই টুকু নেই। অন্যের জমিতে বসবাস করে দরীদ্র পিতা নছিমন-করিমন চালিয়ে সংসারে আহার যোগান। ঐ শিশুর জন্ম লংগ্ন থেকেই দারিদ্র্য আর সীমাহীন যন্ত্রনা নিয়ে দিন পার করেন পিতা আব্দুর রহিম।

২০১৪ সাল থেকে পাবর্তীপুর ল্যাম্ব হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছে। কিন্তু কোন
ফল পাচ্ছিল না। মাঝখানে গত ২০১৬ ক্রিস্টাব্দের ২৩ ফেব্রুয়ারী এম আব্দুর
রহিম (দিনাজপুর) মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডাক্তারকে দেখিয়েছিলেন। সেখানে
উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দিয়ে
ছিলেন ডাক্তার। কিন্তু অর্থের অভাবে ঢাকা’র হাসপাতালে নিতে পারেননি।

অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত ওই শিশুর জন্ম গ্রহণ করায় তাঁকে (মাহমুদা) চিকিৎসা করাতে গিয়ে পরিবারটি খুবই অসহায় হয়েে পড়ে। এর বছর খানেক আগে অসুস্থ্য শিশুটির নামে প্রতিবন্ধি ভাতা করে দেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান। ঐ টাকা দিয়ে তো আর চিকিৎসা হয় না। চিকিৎসা করার অর্থ তাঁদের নেই। সবাই যদি সম্মিলিতভাবে রহিমের পাশে দাঁড়ায়, তাহলে শিশুটির উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারত এবং আব্দুর রহিম সমাজ তথা দেশের ধনাঢ্য দানশীল ব্যাক্তিদের কাছে সাহায্য চেয়ে আবেদন জানিয়েছে ডাচ্ বাংলা ব্যাংক, দিনাজপুর শাখার সঞ্চয়ী হিসাব নম্বর- ১৭২.১৫১.১৫২৩৯৬ এবং ডিবিবিএল মোবাইল ব্যাংকিং-০১৭৫১-৩০০১৭৮৩ নম্বরে সাহায্যের জন্য সকলের প্রতি আবেদন করে মর্মে বিভিন্ন পত্রিকা, অনলাইন সংবাদ মাধ্যমসহ ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ায় সংবাদটি প্রকাশ হলে বিরল উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ হতে তাঁর সহায়তার জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ বি এম রওশন কবীর সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য নির্দেশনা প্রদান করেন।

গত ৫ আগস্ট ২০১৭ খ্রিস্টাব্দে রাজধানী ঢাকায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর
রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের চর্ম ও যৌন রোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ মোঃ রহমত
উল্লাহ সিদ্দিকী’র তত্ত্বাবধায়নে ওয়ার্ড নং ৩ (এ) এর বেড নং ০১ এ ভর্তি হয়ে
উন্নত চিকিৎসা নেয়া শুরু হয়। তদুপরী বিভিন্ন সময় বিভিন্নভাবে চিকিৎসা করেও
সূস্থ্যতা না হতেই সবাইকে কাঁদিয়ে মাহমুদা না ফেরার দেশে ৯ মার্চ শনিবার
বিকালে পাড়ি জমায় (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। সন্ধ্যায়
জানাযা শেষে তাঁকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

Default Ad Banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *