27 Jan 2021 - 06:46:47 pm। লগিন

Default Ad Banner

বাংলাদেশের লক্ষ্য ১৩৯

Published on Saturday, September 21, 2019 at 8:33 pm 156 Views

 

এমসি ডেস্কঃ ত্রিদেশীয় সিরিজে লিগ পর্বের শেষ ম্যাচে বাংলাদেশকে ১৩৯ রানের লক্ষ্য দিয়েছে আফগানিস্তান। বাংলাদেশের আমন্ত্রণে ব্যাটিংয়ে নেমে সাত উইকেটে ১৩৮ রান তুলে আফগানিস্তান।

চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় ম্যাচটি শুরু হয়।

স্কোর: আফগানিস্তান ১৩৮/৭ (২০ ওভার)

বোলিংয়ে রঙিণ আফিফ

দশম ওভারে বোলিংয়ে এসে আফিফ তুলে নেন জাজাই ও আসগরের উইকেট।  ওই ওভারে কোনো রানই দেননি।  পরের দুই ওভারে খরচ করেন মাত্র নয় রান।  তার বোলিং স্পেল ছিল এরকম ৩-১-৯-২।  দুই উইকেট নিয়ে বাংলাদেশের সেরা আফিফ।  এছাড়া তিন পেসার সাইফউদ্দিন, শফিউল ও মুস্তাফিজ পেয়েছেন একটি করে উইকেট। অধিনায়ক সাকিবের পকেটে গেছে এক উইকেট।

লক্ষ্য নাগালে রাখল বাংলাদেশ

শুরুটা ভালো করেছিল আফগানিস্তান।  প্রথম ৯ ওভারে কোনো উইকেট না হারিয়ে স্কোরবোর্ডে তুলেছিল ৭৫ রান।  বড় সংগ্রহের পথে থাকা আফগানিস্তানকে থামিয়ে দ্বিতীয় অর্ধে ম্যাচে ফিরে বাংলাদেশ।  পরের ১১ ওভারে ৬৩ রান জমা করে সফরকারীরা।  এজন্য হারায় সাত উইকেট।  নিয়মিত বিরতিতে উইকেট নিয়ে বোলাররা থিতু হতে দেননি কোনো ব্যাটসম্যানকে।

শফিউলের শিকার করিম

প্রথম ওভারে শফিউল পেয়ে যেতেন উইকেট।  কিন্তু মাহমুদউল্লাহ ক্যাচ জমাতে পারেননি। নিজের তৃতীয় ওভারে এসে আক্ষেপ দূর করেন ডানহাতি পেসার।  তার শর্ট বলে ক্যাচ তোলেন করিম জানাত।  ফাইন লেগে সহজ ক্যাচ দেন মুস্তাফিজুর রহমান।  করিম ফেরার সময় আফগানিস্তানের রান সাত উইকেটে ১১৪।

সাইফ উদ্দিনের ইয়র্কারে বোল্ড নাজিবুল্লাহ

ডানহাতি পেসার সাইফ উদ্দিনের ইয়র্কারে কিছু করার ছিল না নাজিবুল্লাহ জারদানের।  বোল্ড হয়ে বাঁহাতি ব্যাটসম্যান সাজঘরে ফিরলেন ১৪ রানে।  তার আউটের সময় আফগানিস্তানের রান ছয় উইকেটে ১০৯।

আফগানিস্তানের ১০০

সাকিবের বল হাঁটু মুড়ে বসে মিড উইকেট দিয়ে বিশাল ছক্কা হাঁকালেন শফিকউল্লাহ।  ৯৬ থেকে আফগানিস্তানের রান এক লাফে গেল ১০২ এ।  ১৪.২ ওভারে দলীয় শতরানের স্বাদ পায় আফগানিস্তান।

রান আউটে ফিরলেন গুলবাদিন

মাহমুদউল্লাহর থ্রো ঠিকঠাক ছিল না।  খানিকটা কষ্ট করেই বল তালুবন্দি করে উইকেট ভাঙলেন মুশফিক।  তাতে বাংলাদেশ পেল সাফল্য।  এক বলে এক রান করে গুলবাদিন রান আউট হয়ে ফিরলেন সাজঘরে।  তার আউটের সময় আফগানিস্তানের রান পাঁচ উইকেটে ৯৬।

সাকিব ফেরালেন বিপজ্জনক নবীকে

লিগ পর্বের প্রথম ম্যাচে ৮৪ রানের বিস্ফোরক ইনিংস খেলে বাংলাদেশকে একাই হারিয়েছিলেন মোহাম্মদ নবী।  ডানহাতি ব্যাটসম্যান বরাবরই বাংলাদেশের জন্য হুমকি।  সাকিব বিপজ্জনক এ ব্যাটসম্যানকে ফিরিয়ে স্বস্তি দিলেন বাংলাদেশ শিবিরে।  বাঁহাতি স্পিনারের ঘূর্ণিতে পরাস্ত হয়ে এলবিডব্লিউ হন নবী।  ছয় বল চার রান করে সাজঘরে ফেরেন নবী।  তার আউটের সময় আফগানিস্তানের রান চার উইকেটে ৮৮।

এবার ফিরলেন রহমানুল্লাহ

এক রানে মাহমুদউল্লাহর হাতে জীবন পাওয়ার পর রহমানুল্লাহ করলেন ২৯ রান।  ১১তম ওভারে তাকে সাজঘরের পথ দেখান মুস্তাফিজুর রহমান।  বাঁহাতি পেসারের শর্ট বলে ফিরতি ক্যাচ দেন রহমানুল্লাহ।  তার আউটের সময় আফগানিস্তানের রান তিন উইকেটে ৮০।

আফিফের জোড়া আঘাত

জাজাইয়ের পর আসগর আফগানকে টিকতে দিলেন না আফিফ হোসেন।  ডানহাতি অফস্পিনারের স্পিনের বিপরীতে বড় শট খেলতে গিয়ে টাইমিংয়ে গড়বড় করেন আসগর আফগান। রানের খাতা খোলার আগেই শান্তর হাতে ক্যাচ দেন এ অভিজ্ঞ ক্রিকেটার।  তার আউটের সময় আফগানিস্তানের রান দুই উইকেটে ৭৫।

আফিফের হাত ধরে প্রথম সাফল্য

উইকেটের খোঁজে থাকা বাংলাদেশ প্রথম সাফল্য পেল দশম ওভারে।  ছয় বোলার দিয়েও যখন কাজ হচ্ছিল না তখন আফিফ হোসেনকে বোলিংয়ে আনেন সাকিব আল হাসান। ডানহাতি অফস্পিনারের হাত ধরেই আসল প্রথম সাফল্য।

আফিফের প্রথম দুই বলে বিট হওয়ার পর তৃতীয় বল সুইপ করতে গিয়ে শর্ট লেগে ক্যাচ দেন জাজাই।  ৩৫ বলে ৪৭ রান করেন বাঁহাতি ব্যাটসম্যান।  বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের আউটের সময় আফগানিস্তানে রান এক উইকেটে ৭৫।  টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারে এটি আফিফের প্রথম উইকেট।

আফগানিস্তানের ৫০

অতিরিক্ত খাত থেকে সপ্তম ওভারের পঞ্চম বলে এক রান পেল আফগানিস্তান। ওই রানের সুবাদে আফগানিস্তানের রান পৌঁছে যায় দলীয় ৫০ রানে। দারুণ ব্যাটিংয়ে জুটির পঞ্চাশ রান তুলেছেন রহমানুল্লাহ ও জাজাই।

পাওয়ার প্লে’তে এগিয়ে আফগানিস্তান

টস জিতে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিলেও পাওয়ার প্লে’তে কোনো উইকেট নিতে পারেনি বাংলাদেশ।  ছয় ওভারে আফগানিস্তান স্কোরবোর্ডে তুলেছে ৪২ রান।

রহমানুল্লাহকে জীবন দিলেন মাহমুদউল্লাহ

নিজের প্রথম ওভারে উইকেটের স্বাদ পেয়ে যেতেন শফিউল ইসলাম।  ডানহাতি পেসারের শর্ট বল তুলে মারতে গিয়ে রহমানুল্লাহ ক্যাচ দেন শর্ট ফাইন লেগে। কিন্তু সহজ ক্যাচ মিস করে এক রানে রহমানুল্লাহকে জীবন দেন মাহমুদউল্লাহ।

টস

টস জিতে বাংলাদেশের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

এক পরিবর্তনে বাংলাদেশ দল

অভিষেক ম্যাচে ইনজুরিতে পড়া আমিনুল ইসলাম বিপ্লবকে এ ম্যাচে পাচ্ছে না বাংলাদেশ।  তার জায়গায় এসেছেন সাব্বির রহমান।

বাংলাদেশ দল: লিটন দাস, নাজমুল হোসেন শান্ত, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, মোসাদ্দেক হোসেন, আফিফ হোসেন, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, শফিউল ইসলাম, মুস্তাফিজুর রহমান ও সাব্বির রহমান।

পরিবর্তন আফগানিস্তান একাদশেও

দুটি পরিবর্তন আনা হয়েছে আফগান দলে। করিম জানাত ও নাভিন উল হক দলে ঢুকেছেন।

আফগানিস্তান দল: হজরতউল্লাহ জাজাই, শফিকউল্লাহ শফিক, নাভিন উল হক, করিম জানাত, আসগর আফগান, মোহাম্মদ নবী, নজিবুল্লাহ জাদরান, গুলবাদিন নাইব, রহমানুল্লাহ গুরবানজ, রশিদ খান (অধিনায়ক), মুজিব উর রহমান।

ড্রেস রিহার্সাল বিফর ফাইনাল

দুই দল ২৪ সেপ্টেম্বর মিরপুর শের-ই-বাংলায় ফাইনাল ম্যাচ খেলবে।  এর আগে আজ ফাইনালের ড্রেস রিহার্সাল হচ্ছে চট্টগ্রামে।  তবে ম্যাচটি বাংলাদেশের জন্য অনেক বড়।  আফগানিস্তানের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশের রেকর্ড বাজে। শেষ চার মুখোমুখিতে একবারও জেতেনি।  ফাইনালের আগে নিজেদের আত্মবিশ্বাস বাড়াতে আজকের ম্যাচে জয় পেতে মুখিয়ে সাকিবের দল।

হেড টু হেড

দুই দলের টি-টোয়েন্টি রেকর্ড ও পরিসংখ্যানে এগিয়ে আফগানিস্তান।  ক্রিকেটের সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে দুই দলের পাঁচবারের দেখায় বাংলাদেশ জিতেছে একটি, ২০১৪ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে। আর গত বছর আফগানদের হোম ভেন্যু ভারতের দেরাদুনে তিন ম্যাচের সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয়েছে বাংলাদেশ। এরপর চলতি ত্রিদেশীয় সিরিজের লিগ পর্বের প্রথম ম্যাচেও বাংলাদেশ হেরেছিল।

Default Ad Banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *