20 Sep 2021 - 10:08:25 am। লগিন

Default Ad Banner

পুজামন্ডপ সংস্কার ও দূর্গোৎসব পালন পার্বতীপুরে অনুদানের অর্থ বিতরনে অনিয়ম লুটপাটের অভিযোগ

Published on Tuesday, October 8, 2019 at 7:45 pm 122 Views

পার্বতীপুর (দিনাজপুর):  দিনাজপুরের পার্বতীপুরে শারদীয় দূর্গোৎসব পালনের জন্য প্রতিটি পুজামন্ডপে সরকারি অনুদানের ৫০০ কেজি চাল ও মন্ডপ সংস্কারে ১০ হাজার টাকা বিতরণে ব্যাপক অনিয়ম ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে।

সরাসরি চাল বিতরনের বিধি থাকলেও দেওয়া হয়েছে নগদ টাকা তাও প্রতিকেজি চাল মাত্র ১৮ টাকা দরে ৯ হাজার টাকা করে। অথচ খোলাবাজারে প্রতিকেজি চালের মুল্য ৩০ টাকা।

উপজেলা খাদ্য অফিস থেকে ডেলিভেরি অর্ডার নেই, গোডাউন থেকে চাল উত্তোলন  করাও হয়নি অথচ পানির দামে জনৈক ব্যবসায়ীর নিকট আগাম চাল বিক্রি করে টাকা নিয়ে তা বিতরণ করা হয় বলে অভিযোগ উঠেছে।

এছাড়া প্রতিটি মন্ডপ সংস্কার বাবদ বিতরনকৃত ১০ হাজার টাকার মধ্যে নানা অযুহাতে আড়াই হাজার থেকে দুই হাজার আটশ টাকা করে কর্তন করে উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদ।

শুত্রবার (৪ অক্টোবর) দুপুরে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুদানের এসব অর্থ বিতরণ করা হয়। এ বিষয়ে পার্বতীপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও), উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের পরস্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, এবছর উপজেলায় ১৫০টি পুজামন্ডপে শারদীয় দূর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হচ্ছে। অন্যান্য বছরের ন্যায় এবারও দূর্গোৎসব পালনের জন্য প্রতিটি মন্ডপে ৫০০ কেজি  হিসেবে ৭৫ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়। উপজেলা প্রশাসন সময়মত চাহিদাপত্র না দিয়ে ৪ অক্টোবর চাহিদাপত্র গত ইস্যু করে। একই দিন ৭৫ মেট্রিক টন চালের চাহিদাপত্র জনৈক ব্যবসায়ীর নিকট দিয়ে নগদ টাকা নিয়ে প্রতিটি পুজামন্ডপে ৯ হাজার টাকা করে বিতরণ করা হয়।

এছাড়া, প্রতিটি পুজামন্ডপ সংস্কারের জন্য সরকারি বরাদ্দের ২০ হাজার টাকার মধ্যে গত বছর ১০ হাজার টাকা করে  দেওয়া হয়। অবশিষ্ট ১০ হাজার করে টাকাও শুক্রবার বিতরণ করা হয়। সে টাকা থেকেও মন্ডপপ্রতি কর্তন করা হয় আড়াই হাজার থেকে দুই হাজার আটশ টাকা করে।

মন্মথপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ কৈবত্যপাড়া  গ্রামের চারবাড়িয়া পুজামন্ডপের সভাপতি লোকেস চন্দ্র রায় ও তার ছেলে লিটন চন্দ্র রায়, মধ্য কৈবত্যপাড়া পুজামন্ডপের সভাপতি ঝুনু সরকার এবং উত্তর কৈবত্যপাড়া রামকৃষ্ঞ আশ্রম পুজামন্ডপের সভাপতি সুজন কুমার বিশ্বাস সহ অনেক পুজামন্ডপ সভাপতি ও সম্পাদকের সাথে কথা বলে জানা গেছে- মন্ডপ সংস্কারের ১০ হাজার টাকার মধ্যে তারা  সাত হাজার দুইশ থেকে সাত হাজার তিনশ টাকা করে পেয়েছেন। দূর্গোৎসব পালনের জন্য পেয়েছেন ৮ হাজার ৬০০ টাকা করে।

উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক দিপেশ সিংহ রায় জানান -  উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার (পিআইও) অফিস থেকে মন্ডপ সংস্কারের ১০ হাজার  টাকার মধ্যে মন্ডপ প্রতি আড়াই হাজার টাকা কর্তন করে সাড়ে সাত হাজার টাকা করে বিতরণ করা হয়।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) তাজুল ইসলাম জানান- মন্ডপ সংস্কারের অবশিস্ট টাকা অনেক আগেই বিতরণ করা হয়েছে। আর শুক্রবার দূর্গোৎসব পালনের সরকারি বরাদ্দের চালই বিতরণ করা হয়েছে টাকা  নয়।

উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক দেলোয়ার হোসেন সরকার সোমবার(৭ অক্টোবর) জানান- ৪ অক্টোবর তিনি কোন ডেলিভেরি আদেশ দেননি। ফলে ওইদিন সরকারি গোডাউন (এলএসডি) থেকে কোন চাল বাহির হয়নি। রোববার (৬ অক্টোবর) পিআইও অফিস থেকে চাহিদাপত্র পাওয়ার পর তিনি চাল ডেলিভেরি আদেশ প্রদান করেছেন।

পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) শাহনাজ মিথুন মুন্নী জানান- পুজামন্ডপের লোকজনেরা চাল নিতে চায় না। তাই প্রতিবছরের ন্যায় এ বছরও ৫০০ কেজি চালের বিপরীতে ৯ হাজার করে টাকা দেওয়া হয়েছে। উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের লোকজনেরা জনৈক ব্যবসায়ীর সাথে আলোচনা  করে টাকার ব্যবস্থা করে।

Default Ad Banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *