শিরোনাম

21 Jan 2021 - 03:35:30 am। লগিন

Default Ad Banner

নবাবগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমানের শর্টগানের লাইনসেন্স বাতিলসহ আসামীদের দ্রুত বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

Published on Sunday, May 5, 2019 at 4:42 pm 250 Views

ডি কে মহন্ত: দিনাজপুর জেলা প্রেসক্লাবে নবাবগঞ্জ উপজেলা আঃলীগের সাধারণ সম্পাদক (অল্পকিছু দিন আগে শপথ নেওয়া) নবাবগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমানকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা, শর্টগানের লাইসেন্স বাতিল ও মাললার আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার করে বিচারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে উপজেলা আঃলীগ,  ছাত্রলীগ, যুবলীগ, ও সেচ্ছাসেবকলীগ।
রবিবার সকাল সাড়ে ১১টায় দিনাজপুর জেলা প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নবাবগঞ্জ উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক  দীলিপ কুমার ঘোষ।
লিখিত বক্তব্যে বলা হয়- নবাবগঞ্জ উপজেলাধীন মাহমুদপুর ইউনিয়নের করতোয়া(মাইলা) নদী খনন কাজ স্থানীয় প্রশাসনকে না জানিয়ে, কোন সাইনবোর্ড না দিয়ে প্রকল্পের কাজ ডিগলারেশন না দিয়ে, চুপচাপে কাজ শুরু করার জন্য ঠিকাদারদের পক্ষ থেকে দায়িত্ব নেন আতাউর রহমান ও তার ছেলে।
এই কাজে অনিয়ম ও ব্যক্তিগত মালিকানাধীন কিছু জমি পড়ে যাওয়ার কারণে স্থানীয় জনসাধারণ প্রতিবাদ জানায় এবং সিডিউল মোতাবেক কাজ করার অনুরোধ করে।
ব্যক্তিগত জমির ব্যপারে সরকারের পক্ষ থেকে কোন জমি অধিগ্রহণ করার নির্দেশনা আছে কিনা জানতে চাওয়ায় এক পর্যায়ে বিষয়টি নিয়ে বাক-বিতন্ড হতে-হতেই আতাউর রহমানের ছেলে সাধারণ মানুষের সঙ্গে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজসহ বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধুমকি দিতে থাকে।
বিষয়টি পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী দিনাজপুরকে অবহিত করলে তিনি নিজেই বলেন আমি এই বিষয়ে কোন কিছু জানি না।
অথচ ৪ কোটি টাকার কাজ স্থানীয় সাংসদ ও স্থানীয় প্রশাসনকে কোন কিছু অবহিত না করে ব্যক্তিগত জমির উপর দিয়ে এই কাজের উদ্বোধন এবং খনন কাজ শুরু করেন সদ্য শপথ নেওয়া নবাবগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান।
স্থানীয় জনতা মুটোফোনের মাধ্যমে ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতিকে অবহিত করলে সেখানে তিনি উপস্থিত হয়ে বিষয়টি জানতে চাইলে আতাউর রহমানের ছেলে শফিউল ইসলাম পিলু প্রথমে অশোভন আচরণ সহ মা বাপ তুলে গালিগালাজ করতে থাকে এবং ধারালো অস্ত্র নিয়ে তেড়ে আসেন মারার জন্য।
স্থানীয় যুবলীগ ছাত্রলীগসহ সাধারণ মানুষের প্রতিবাদের মুখে পড়ে আতাউর রহমানের ছেলে এবং মুটোফোনে আতাউর রহমানকে মোগরপাড়ায় আসতে বলেন, ঘটনা স্থলে চেয়ারম্যান আতাউর রহমান তার সন্ত্রাসী বাহিনীসহ গাড়ি থেকে নেমেই ব্যক্তিগত শর্টগান দিয়ে সাধারণ জনগণের দিকে এলোপাতাড়ি গুলে ছুড়তে থাকেন।
ঘটনাস্থলে আমাদের সহকর্মী ২জন মাথা পায়ে গুলি লেগে মাটিতে লুটিয়ে পড়লে সাধারণ মানুষ ছত্রভঙ্গ হয়, সাধারণ মানুষ ও সহযোগী সংগঠনের ৩৮টি মোটর সাইকেল তার সন্ত্রাসী বাহিনী ভেঙ্গে ফেলে।
এই পর্যায়ে আমরা নবাবগঞ্জ উপজেলা আঃলীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমানকে অবাঞ্ছিত ঘোষণার দাবি করছি, এবং একই সঙ্গে তীব্র নিন্দা ও ধিক্কার জানাই।
আওয়ামী পরিবারে ঘাপটি মেরে বসে থাকা এই সুবিধাবাদী, দুঃচরিত্র চাঁদাবাজ একাধিক মামলার আসামী আতাউর রহমানকে দলীয় সকল কর্মকান্ড থেকে অব্যাহতিসহ প্রশাসন ও এলাকাবাসীর নিরাপত্তার স্বার্থে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ করছি জনগণের মধ্যে স্বস্তি ফিরিয়ে আনতে যে শর্টগান দিয়ে আতাউর রহমান গুলি করেছন, জনগণের মধ্যে আতংকের সৃষ্টি করেছেন, সেই শর্টগান দ্রুত জব্দ করে লাইসেন্স বাতিল করা হউক।
হামলায়, ঘটনায় মামলার আসামীদের দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হোক।
এসময় উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ জিয়াউর রহমান মানিক, যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক মোঃশামসুজ্জামান, সেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম আহবায়ক মোঃ সাজেদুর রহমান রানা, ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ শাহিনুর ইসলাম সবুজসহ জেলার বিভিন্ন গণমাধ্যমের সংবাদ কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

Default Ad Banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *