21 Oct 2021 - 05:44:37 am। লগিন

Default Ad Banner

দেশের সব রেল স্টেশনের ছাদ ব্যবহার করে সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদনের উদ্যোগ

Published on Sunday, September 29, 2019 at 6:55 pm 204 Views

এমসি ডেস্কঃ দেশের সব রেলস্টেশনের ছাদ ব্যবহার করে সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদনের উদ্যোগ নিচ্ছে বিদ্যুৎ বিভাগ। ছাদে সৌর বিদ্যুৎ স্থাপনের নেট মিটারিং কার্যক্রম সফল হওয়ার পর নতুন এ উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।

ফলে একদিকে অব্যবহৃত রেলস্টেশনের ছাদ যেমন ব্যবহার হবে, অন্যদিকে হবে বিদ্যুৎ উৎপাদন। ধারণা করা হচ্ছে, এভাবে প্রায় ১শ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সম্ভব হবে। খুব শিগগিরই এ বিষয়ে একটি সম্ভাব্যতা জরিপের কাজ শুরু করা হবে। বিদ্যুৎ বিভাগ সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, রেল স্টেশনের ছাদে সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদনের বিষয়ে বিদ্যুৎ বিভাগের নবায়নযোগ্য জ্বালানি শাখা এবং রেলপথ মন্ত্রণালয়ের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরেই আলোচনা হচ্ছিল। তবে নানা বিষয়ে মতের মিল না হওয়াতে তারা রেলস্টেশনগুলোর ছাদ ব্যবহারের অনুমতি দেয়া হচ্ছিল না।

এখন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের বৈঠকে সম্ভাব্যতা জরিপ চালানোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে। বিদেশী একটি দাতাসংস্থা নিজস্ব খরচে রেল স্টেশনগুলোর ওপর সৌর বিদ্যুত কেন্দ্র স্থাপনের খরচ বহন করতে রাজি হয়েছে। এমনকি ওই দাতাসংস্থাকে আর এই অর্থ ফেরতও দিতে হবে না।

সূত্র জানায়, এক হিসেবে বলা হচ্ছে দেশের সব থেকে বড় স্টেশন কমলাপুরে অন্তত ৮ মেগাওয়াটের সোলার প্যানেল স্থাপন সম্ভব। এর বাইরে রেলওয়ের আরো বড় অবকাঠামো রয়েছে। সব মিলিয়ে রেলস্টেশনগুলো ব্যবহার করলে প্রায় ১০০ মেগাওয়াট সৌর বিদ্যুত উৎপাদন সম্ভব হবে।

তাছাড়া রেলস্টেশনগুলো জেলা শহরে হওয়াতে বিদ্যুৎ উৎপাদনের পর সঞ্চালন নিয়েও কোন সমস্যায় পড়তে হবে না। এখন সম্ভাব্যতা জরিপ শেষ হওয়ার পরই বলা যাবে কোন স্টেশনের উপর কতটা সৌর বিদ্যুত প্যানেল বসানো যাবে।

তবে শুরুতে বড় স্টেশনগুলোর উপরই সৌর বিদ্যুত প্যানেল বসানো শুরু হবে। সেক্ষেত্রে কমলাপুর স্টেশনের চেয়েও রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলে পাহাড়তলি এবং পশ্চিমাঞ্চলে সৈয়দপুর কারখানায় সৌর বিদ্যুত স্থাপনের জন্য আরো বড় ছাদ পাওয়া যাবে।

সূত্র আরো জানায়, এক মেগাওয়াট সৌর বিদ্যুত কেন্দ্র স্থাপনের জন্য সাড়ে তিন একর জমির প্রয়োজন হয়। ওই হিসেবে প্রতি ১০০ মেগাওয়াট কেন্দ্রর জন্য ৩৫০ একর জমির প্রয়োজন হয়।

বিপুল পরিমাণ জমির সংস্থান না হওয়াতে সৌর বিদ্যুত কেন্দ্র স্থাপন করা সম্ভব হচ্ছে না। সেক্ষেত্রে সরকার বিকল্প হিসেবে সরকারি ভবনের ছাদ ব্যবহার করতে চাইছে। রেলওয়ে স্টেশনগুলোর ছাদে অনেক জায়গা থাকাতে সেগুলোর ওপর সৌর বিদ্যুৎ প্যানেল স্থাপন করাকে সুবিধাজনক হবে।

এদিকে বর্তমানে দশে এখন গ্রিড সংযুক্ত সৌর বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রর সংখ্যা মাত্র চারটি। ওসব সৌর বিদ্যুত কেন্দ্র থেকে ৩৮ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ পাওয়া যাচ্ছে। তবে তার বাইরে এখন মাত্র একটি নতুন সৌর বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপন সিরাজগঞ্জে শুরু হয়েছে। যার উৎপাদন ক্ষমতা ৭ দশমিক ৪ মেগাওয়াট।

এমন পরিস্থিতিতে বড় প্রকল্পগুলো জমি জটিলতার কারণে ঝুলে থাকায় ছোট ছোট উৎস থেকে সৌর বিদ্যুত উৎপাদনে আগ্রহী বিদ্যুৎ বিভাগ। তাতে করে গ্রিডের ওপরও চাপ কমানো সম্ভব বলে মনে করা হচ্ছে।

অন্যদিকে এ প্রসঙ্গে বিদ্যুৎ বিভাগের এক কর্মকর্তা জানান, সৌর বিদ্যুৎ শুধু উৎপাদন করলেই হবে না তা গ্রিডে সঞ্চালনও করতে হবে। েেক্ষত্রে সৌর বিদ্যুতে বড় সমস্যা হচ্ছে গ্রিড সাবস্টেশনের অনেক দূরে কেন্দ্র স্থাপন করাতে সঞ্চালন লাইন স্থাপন করায় ব্যয় বাড়ছে।

কিন্তু রেলস্টেশনগুলোর ওপরে সোলার প্যানেল বসালে আশপাশের কোন গ্রিড সাবস্টেশনে বিদ্যুত সরবরাহ করা সম্ভব হবে। ফলে অতিরিক্ত ব্যয়ে সঞ্চালন লাইন নির্মাণের প্রয়োজন হবে না। তাছাড়া ভূমি উন্নয়ন বাবদ যে অতিরিক্ত ব্যয় করতে হয় স্টেশনগুলোর ছাদে তার প্রয়োজন হবে না। ভূমি বাবদ ব্যয় এবং সঞ্চালন ব্যয় কম হওয়াতে বিদ্যুতের উৎপাদন খরচ অনেক কম পড়বে।

Default Ad Banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *