শিরোনাম

13 May 2021 - 09:03:21 am। লগিন

Default Ad Banner

দিনাজপুরের খানসামায় সরকারী কবরস্থানের গাছ কর্তন, নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর অভিযোগ দায়ের

Published on Wednesday, October 23, 2019 at 6:55 pm 108 Views

মাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরের খানসামা উপজেলায় সরকারী খাস জমির কবরস্থানের গাছ কর্তন ও বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ ব্যাপারে এলাকাবাসির পক্ষে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য খানসামা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন উপজেলার কুমড়িয়া গ্রামের মৃত রহিমুদ্দিন শাহ’র ছেলে মো. আব্দুল্যাহ হেল বাকী। যার অনুলিপি ভাবকী ইউপি চেয়ারম্যান ও খানসামা উপজেলা সহকারী বন কর্মকর্তা বরাবর প্রেরণ করা হয়েছে।

লিখিত অভিযোগে আব্দুল্যাহ হেল বাকী জানান, চলতি মাসের গত ১০ অক্টোবর বৃহস্পতিবার রাত আনুমানিক সাড়ে ১১টার সময় অভিযুক্ত কুমড়িয়া গ্রামের মৃত আফাজউদ্দিনের ছেলে বাবলু রহমান ও মোস্তফা কামাল, বাবলু রহমানের ছেলে মমিনুল ইসলাম, তজের আলীর ছেলে সাইদুল হক, আব্দুল আজিজের ছেলে রবিউল ইসলাম, মৃত আলিমুদ্দিনের ছেলে আব্দুল নুর, মৃত ইসমাঈল হোসেনের ছেলে সাফিয়ার রহমান, মৃত হাচিমুদ্দিনের ছেলে আব্দুল হাকিম, মৃত মুসলেম উদ্দিনের ছেলে সাদেকুল ইসলাম ও ভাবকী গ্রামের মৃত বকস’র ছেলে জিয়ারুল হক এবং মুসলেম উদ্দিনের ছেলে রবিউল ইসলাম দলবদ্ধ হয়ে সাফিয়ার রহমানের বাড়ীতে গোপন বৈঠক করে। বৈঠকের পরের দিন ১১ অক্টোবর কুমড়িয়া গ্রামের টেংরাঝুলা পুকুরের পাশের্^ সরকারী খাস জমির উপর কবরস্থানের ৮টি কাঁঠাল গাছ কেঠে আনুমানিক পঁচিশ হাজার টাকায় বিক্রি করে টাকা ভাগভাটোয়ারা করে নেয়।

তারই ধারাবাহিকতায় অভিযুক্তরা গত ১৪ অক্টোবর সোমবার সকাল ১১টায় ওই কবরস্থানের ভু-সম্পত্তির উপর ঐতিয্যবাহি একটি শিমূল গাছ যার মূল্য প্রায় পঁচিশ হাজার টাকা কাটতে যায়। খবর পেয়ে খানসামা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান এটিএম সুজাউদ্দিন লুহিন শাহ বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবহিত করেন। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে ভাবকী ইউনিয়ন সহকারী ভুমি কর্মকর্তা নাদিমুল ইসলাম ঘটনাস্থলে পৌঁছে নেজামদ্দিন, শাহজাহান (ভোল্ল), হামিদুল হক, রেজ্জাক আলী, হাচিমুদ্দিনসহ এলাকার অন্যান্যদের সহায়তায় কাটা শিমূল গাছের ডালপালা, গোড়া ও বাকলসহ গাছের অন্যান্য অংশ জব্দ করে ইউনিয়ন ভুমি অফিসে নিয়ে আসেন।

এ ব্যাপারে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে গত ১৬ অক্টোবর খানসামা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়।

অভিযোগকারী ও তাঁর স্বজনরা জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করার পর সহকারী বন কর্মকর্তা তদন্ত করলেও এখন পর্যন্ত দায়ীদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। এদিকে অভিযোগ দায়েরের পর অভিযুক্তরা ক্ষুব্ধ হয়ে অভিযোগকারী ও তাঁর স্বজনদের বিভিন্নভাবে হুমকি দিয়েছে বলে জানান অভিযোগকারী ও তাঁর স্বজনরা জানিয়েছেন।

Default Ad Banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *