22 Jan 2021 - 12:28:15 pm। লগিন

Default Ad Banner

ঠাকুরগাঁওয়ে অজানা রোগে একই পরিবারের ৫ সদস্যের মৃত্যু

Published on Monday, February 25, 2019 at 8:09 am 191 Views

এমসি ডেস্ক: ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ধনতলা ইউনিয়নে ভান্ডারদহ মরিচপাড়া গ্রামে অজানা রোগে একই পরিবারের ৫ সদস্যের মৃত্যু হয়েছে। এতে ওই এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

প্রথমে বাবার মৃত্যু, পরে একই
দিনে মা
ও ভগ্নিপতির,
গত শনিবার
১ ভাই
ও রোববার
আরেক ভাই
মারা গেছেন।

স্থানীয়রা জানায়, গত ৯ ফেব্রুয়ারি
ইউনিয়নের ভান্ডারদহ
মরিচপাড়া গ্রামের
আবু তাহের
(৫৫) অসুস্থ
হয়ে মৃত্যুবরণ
করেন। পরে
২০ ফেব্রুয়ারি
আবু তাহেরের
জামাই সদর
উপজেলার রুহিয়ার
কুজিশহর এলাকার
হাকিম উদ্দীনে
ছেলে হাবিবুর
রহমান বাবলু
(৩৫) একই
ভাবে হয়।
ঐ দিন
সকালে ৯টার
দিকে রংপুর
মেডিকেল কলেজ
হাসপাপাতালে বাবলুর মৃত্যুর কিছুক্ষণ পর
আবু তাহেরের
স্ত্রী হোসনে
আরা বেগম
(৪৭) একই
রোগে আক্রান্ত
হয়ে মারা
যান। এরপর
২৪ ফেব্রুয়ারি
সকালে একই
রোগে আক্রান্ত
হন আবু
তাহেরের দুই
ছেলে ইউসুফ
আলী (২৮)
ও মেহেদী
হাসান (২৫)। তাদের
দুজনকে রংপুর
মেডিকেল কলেজ
হাসপাতালে নেওয়ার পথে ইউসুফ মারা
যান এবং
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মেহেদী মারা
যান রোববার
রাতে। এছাড়াও মৃদত ইউসুফের স্ত্রী
কোহিনুর বেগম
তার একমাত্র
কন্যা সন্তানকে
নিয়ে বালিয়াডাঙ্গী
উপজেলা স্বাস্থ্য
কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন আছেন।

রংপুর হাসপাতালে
থাকা মেহেদীর
স্বজন জাহির
উদ্দীন ও
দুলাল হোসেন
জানায়, হাসপাতালে
আসার পর
চিকিৎসক রোগীকে
ভর্তি করেছিলেন।
তবে মেহেদী
কি রোগে
আক্রান্ত ছিলেন
সেটা চিকিৎসক
বলতে পারেননি।
প্রাথমিক ভাবে
তারা ধারণা
করছেন এটি
একটি ভাইরাস
রোগ। যা
প্রথমে ব্রেইনে
আক্রমণ করে।
ধীরে ধীরে
মানুষের শরীরকে
অক্ষম করে
দেয় ও
শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। এর কিছু
সময়ের মধ্যে
আক্রান্ত ব্যক্তি
মৃত্যুর কোলে
ঢলে পড়েন।

বালিয়াডাঙ্গী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার
পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ ফিরোজ জামান
জুয়েল বলেন,
কোহিনুর ও
তার কন্যা
সন্তান বর্তমানে
সুস্থ্য আছেন।
আশা করছি
কোন ভয়
নেই। তবে
কোন প্রকার
সমস্যা হলে
আমার পূর্ব
প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি।

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রশাসক ড. কেএম
কামরুজ্জামান সেলিম বলেন, ঘটনা শুনে
উপজেলা নির্বাহী
কর্মকর্তা ও ঠাকুরগাঁও সিভিল সার্জনকে
দ্রুত ব্যবস্থা
নিতে বলা
হয়েছে।

ঠাকুরগাঁও সিভিল সার্জন (ভারপ্রাপ্ত) ডা. শাহজাহান নেওয়াজ বলেন, অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়ে ৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। ঢাকায় বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে আমি কথা বলেছি। তারা দ্রুত সময়ের মধ্যে এসে বিষয়টি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখবেন। তাছাড়া রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাপাতাল কর্তৃপক্ষ মৃত ব্যক্তিদের নমুনা পরিক্ষার জন্য পাঠিয়েছে। আশা করি কোন রোগে তাদের মৃত্যু হয়েছে দ্রুত সময়ের মধ্যে তার সঠিক কারণ জেনে ব্যবস্থা নেওয়া যাবে।

Default Ad Banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *