21 Jun 2021 - 12:12:51 pm। লগিন

Default Ad Banner

কাশ্মিরে নির্যাতন: রড দিয়ে পিটিয়ে ইলেকট্রিক শক দেয়ার অভিযোগ

Published on Friday, August 30, 2019 at 7:09 pm 154 Views

এমসি ডেস্কঃ বিশেষ সুবিধা তুলে নিয়ে কাশ্মিরে কারফিউ জারি করার পর সেখানকার বেসামরিক লোকদের ওপর অকথ্য নির্যাতন চালানোর অভিযোগ এসেছে। অভিযোগের তীর ভারতীয় নিরাপত্তাবাহিনীর বিরুদ্ধেই বেশি। নির্যাতনের শিকার হওয়া অধিকাংশই তরুণ ও যুবক। বিবিসির প্রতিবেদক সামির হাশমী কাশ্মিরের দক্ষিণাঞ্চলীয় প্রায় ছয়টি গ্রাম ঘুরে এই প্রতিবেদন করেছেন।

গ্রামের বাসিন্দারা বিবিসির প্রতিবেদককে তাদের শরীরে মারধরের চিহ্ন দেখিয়েছে। যদিও ওই প্রতিবেদকের পক্ষে গ্রামবাসীদের এসব অভিযোগের সত্যতা যাচাই করা সম্ভব হয়নি। উল্টো ভারতীয় সেনাবাহিনী অভিযোগগুলো ভিত্তিহীন ও অপ্রমাণিত বলে উড়িয়ে দিয়েছে।

গ্রামবাসীরা জানান, নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা কাশ্মিরে বেসামরিকদের ওপর ব্যাপক নির্যাতন চালাচ্ছে। তাদের লাঠি দিয়ে পেটানো হচ্ছে, ইলেকট্রিক শক দেয়া হচ্ছে, চিৎকার করলে মুখে কাদা ঢুকিয়ে দেয়া হচ্ছে।

উল্লেখ্য, আগস্টের প্রথম সপ্তাহে কাশ্মিরের বিশেষ সুবিধা বাতিল করে ক্ষমতাসীন ভারতীয় জনতা পার্টি সরকার। তারপর কাশ্মিরিদের তাৎক্ষনিক বিক্ষোভ দমন করতে উপত্যকায় প্রায় আড়াই লাখ সেনা মোতায়েন করে। স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাসহ প্রভাবশালী ব্যক্তিদের আটক করে রাখাসহ পুরো অঞ্চলটি অবরুদ্ধ করে রাখা হয়।

কাশ্মিরের যে কয়েকটি গ্রামে ভারত-বিরোধী জঙ্গিবাদ মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে বলে অভিযোগ রয়েছে সেসব গ্রামে অত্যাচারের মাত্রা বেশি বলে জানিয়েছে বিবিসি। সেখানকার বাসিন্দারা প্রতিবেদককে বলেন, প্রায়ই সেখানে গভীর রাতে অভিযান চালায় সেনারা। তারা বিবিসি'র প্রতিবেদককে নির্যাতনের ক্ষতও দেখিয়েছেন।

তবে মারধরের বিষয়টি নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে চাননি স্থানীয় চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা। তারা বলেন, আমরা এই ব্যাপারে কিছুই জানি না।

ওই গ্রামের একটি পরিবারের দুই ভাই তাদের ওপর চালানো নির্যাতনের বর্ণনা দেন। দুই ভাইয়ের একজন বলেন, তারা আমার শরীরের সবখানে মেরেছে। আমাদের লাথি মেরেছে, লাঠি দিয়ে পিটিয়েছে, আমাদের ইলেকট্রিক শক দিয়েছে। পায়ের পেছন দিকে লাঠি দিয়ে মারার পর আমরা জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছিলাম। তখন আমাদের ইলেকট্রিক শক দিয়েছে। লাঠি দিয়ে পেটানোর সময় আমরা চিৎকার করছিলাম, তখন আমাদের মুখে কাঁদা ভরে দিয়েছে। তারা কেবল আমাদের মারতে ব্যস্ত ছিল।

আরেক ভাই বলেন, আমরা চিৎকার করে বলছিলাম, আমাদেরকে মেরে ফেলুন। আমরা আল্লাহর কাছে আমাদের মৃত্যু প্রার্থণা করছিলাম। কেননা, ওই নির্যাতন অসহ্য ছিল।

অপর এক তরুণ জানায়, সেনারা তাকে জোর করে কাপড় ও জুতা খুলে ফেলতে নির্দেশ দেয়। তারপর তারা আমাকে রড ও লাঠি দিয়ে প্রায় দুই ঘণ্টা ধরে নির্দয়ভাবে মেরেছে। মার খেয়ে আমি যখন অজ্ঞান হয়ে পড়েছি, তখন আমায় ইলেকট্রিক শক দিয়েছে। এমনভাবে চলতে থাকলে আমি অস্ত্র হাতে তুলে নেবো। আমি প্রতিদিন এসব সহ্য করতে পারবো না।

নির্যাতনের ব্যাপারে ভারতীয় সেনাবাহিনীকে জিজ্ঞেস করা হলে সেনাবাহিনীর মুখপাত্র কর্নেল আমান আনন্দ বিবিসিকে জানান, এই ধরনের কোনো অভিযোগ আমাদের কাছে আসেনি। এইসব ক্ষতিকর উদ্দেশ্য নিয়ে ছড়ানো হচ্ছে।

Default Ad Banner

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *